ত্রিশাল ময়মনসিংহ থেকে২০ কি:মি: দক্ষিণে ভালুকা উপজেলার উত্তরে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়ক নিয়ে গঠিত। সুতিয়ানদী ত্রিশাল পৌরসভার মধ্য দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে।  ১৯০৯ সালের মে ৮টি ইউনিয়ন নিয়ে ত্রিশাল থানাহওয়ার পূর্বে অঞ্চল ছিল ময়মনসিংহ সদর কোতুয়ালী থানার অন্তর্গত প্রত্যন্তপশ্চাদপদ প্রায় সড়ক যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন এলাকা। পরবর্তীতে ফুলবাড়ীয়া থানার টি ইউনিয়নঅন্তর্ভূক্ত করে মোট ১২টি ইউনিয়ন নিয়ে ত্রিশাল থানা গঠিত।  ময়মনসিংহ জেলায় মুসলিম শাসনের আগমন ঘটেখ্রীষ্টীয় চতুর্দশ শতাব্দীর শেষের দিকে, যার অর্ন্তভুক্ত হয় ত্রিশাল এলাকাও। তখনজেলা ছিল না। মুসলিম শাসকগণ শাসন কার্যের সুবিধার্থে নির্দিষ্ট এলাকা নিয়ে পরগনারসৃষ্টি করেন। ব্রক্ষ্মপুত্র নদের পূর্বভাগ ময়মনসিংহ এবং পশ্চিমভাগ আলাপসিংহ পরগনানামে পরিচিত ছিল। আর ত্রিশাল স্বাভাবিক ভাবেই আলাপসিংহ পরগনার অর্ন্তভূক্ত হয়। প্রথমেমুসলমানদের সংখ্যা বসতি বেশী দেখা যায়।  পরে আস্তে আস্তে হিন্দু সনাতন ধর্মাবলীদেরআগমনের পূর্বে গারোদের বংশধর এখানে বসতি স্থাপন করে। ত্রিশাল বাজার হওয়ার পূর্বে নওধারভাংতির পূর্ব পার্শ্বে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পশ্চিমে সুতিয়া নদীর দক্ষিণ তীরেকুলাইতলা মন্দিরকে ঘিরেই ছিল নওধার হাট, যা জমিদারদের দেয় নাম রাধাগঞ্জ, প্রকাশত্রিশাল বাজার হওয়ার পর ধীরে ধীরে তার অস্তিত্ব হারায়। উক্ত বাজারে লোকজন কেনাকাটাকরার পর নিজ নিজ আবাসস্থলে চলে যায়। শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ছিল একবারে নগন্য সংখ্যক।  থানা সংলগ্ন বর্তমান নজরুল একাডেমী, দরিরামপুরজুনিয়র হাই ইংলিশ স্কুল নামে রামপুর মৌজার আধিবাসী  শিক্ষার প্রতি আগ্রহী মেহের আলী মৃধার একান্তপ্রচেষ্টায় থানা সৃষ্টি হয়।  বর্তমানেত্রিশালের পরিচিতি ব্যাপক বিকাশ ঘটে আবুল মুনসুর আহম্মদ, আবুল কালাম শামসদ্দিন, ইমানআলী সাহিত্যরত্ন সাহেবদের মত ক্ষণজন্মা ব্যক্তিদের আমল থেকে প্রকৃতপক্ষে আর একধাপপরিপূর্নতার দিকে অগ্রসর হয় ময়মনসিংহের স্বনামধন্য জেলা প্রশানক পি, (পিয়ার আলী)নাজির (১৯৬৪-৬৬) সাহেবের ত্রিশালে প্রথম নজরুল জন্মোৎসব পালনের মধ্যদিয়ে। যারফলশ্রুতিতে, ত্রিশাল নামাপাড়া বটতলায় আজ হয়ে উঠেছে জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামবিশ্ববিদ্যালয়। রফিজউল্ল্যা দারোগা ত্রিশালবাসীর অন্তরে জাগরুক হয়ে থাকবেঅনন্তকাল। কেননা তিনিই তো কৈশোরে নজরুলকে এখানে এনেছিল।  অন্য প্রসঙ্গ বাদ দিয়ে এবার ত্রিশালের নামকরনকিভাবে হয়েছে তা লক্ষ করা যাক। ত্রিশাল থানার নামকরণ করা হয়েছে ত্রিশাল মৌজারনামের উপর ভিত্তি করে। ত্রিশাল মৌজাকে কেন্দ্র করেই ত্রিশাল ইউনিয়ন গঠিত হয়।  ত্রিশাল থানার নামকরণ নিয়ে নানা মুনির নানা মত। বাংলাদেশপরিসংখ্যান ব্যুরোর প্রকাশিত বাংলাদেশ আদমশুমারী ১৯৯১ এর কমিউনিটি সিরিজে ৬০ নংপৃষ্ঠায় উল্লেখ আছে যে, অতীতে অত্র অঞ্চলে তিনটি বিশাল আকৃতির শাল বৃক্ষ ছিল। এতিনটি শাল গাছের নাম অনুসারে ত্রিশাল নামকরণ করা হয়। ত্রিশালের পূর্ব সীমানা দিয়েসুতিয়া নদী প্রবাহিত। এর পশ্চিম তীরে ছিল তিনটি বিশাল আকৃতির শাল গাছ। একদা একপ্রেমিক যুগল গোপনে পলায়নরত অবস্থায় তিনটি শাল গাছের নীচে আশ্রয় নেয়। পরে খোজপেয়ে তাদেরকে উত্তম মধ্যম দেয়। ঘটনার কথা সর্বত্র রটে যাওয়ায় তাদের পলায়নেরস্থান দেখতে তিন শাল গাছের নিকট যাওয়া শুরু করে এলাকাবাসী। আর তিন শাল গাছেরনীচের ঘটনাকে স্মরন রাখতে স্থানটির নাম দেয় তিনশাল,যা পরবর্তীতে ত্রিশাল নাম ধারনকরে। তৎকালীর জেলা প্রশাসক জাফর আহম্মেদ চৌধুরী উল্লেখ করেছেন যে, অত্র থানার বৈলরইউনিয়নের ইমান আলী, সাহিত্যরত্ন এর দিনপঞ্জী থেকে জানা যায় যে, অত্র এলাকার জনবসতিহওয়ার পূর্বে জনৈক ত্রিশূলধারী ব্যক্তির নিয়ন্ত্রনে সমাজ গঠন হয়। এই ত্রিশূল এরশিষ্যবর্গ এখানে বসতি স্থাপন করে। এই ত্রিশূল থেকেই কালক্রমে ত্রিশাল নামেরউৎপত্তি। জাফর আহম্মেদ চৌধুরী সাহের ত্রিশাল থানার নামকরনের উৎস সম্পর্কে জনশ্রুতিঅনুযায়ী উল্লেখ করেছেন, প্রথম যারা এলাকায় গভীর অরন্যে বসতি স্থাপন করে তাদেরসংখ্যা ছিল ত্রিশ জন। হিংস্র প্রানীদের আক্রমন থেকে আত্ম রক্ষার্থে তারা বাড়ীরচতুর্দিকে দেয়াল নির্মাণ করেছিল উচু দেয়ালকে আল বলত। এরা ক্রমে ক্রমে অপরাপর বসতিস্থাপনকারীদের নিকট গুরুত্ব লাভ করে। নতুন বসতি স্থাপনকারীগণ তাদেরকে তিরিশ আলোরলোক বলে সম্মান করত। এভাবে তিরিশ আল থেকে ত্রিশাল নামের উৎপত্তি।

ত্রিশাল পৌরসভা ৫মে ১৯৯৮খ্রি: তারিখে প্রতিষ্ঠিত  হয়েছে। তৎকালীন স্থানীয়সরকার, পল্লী উন্নয়ন সমবায় মন্ত্রী বর্তমানে মহামান্য রাষ্ট্রপতি জনাব জিল্লুররহমান ত্রিশাল পৌরসভা ঘোষনা করেন। ত্রিশাল পৌরসভার আয়তন ১৫.৪৯ বর্গকিলোমিটার। ৯টিওয়ার্ড নিয়ে ত্রিশাল পৌরসভা গঠিত।

এক নজরে ত্রিশাল পৌরসভার ওয়ার্ড পরিচিতি এবং লোক সংখ্যা

নং ওয়ার্ড: ত্রিশাল মৌজার উত্তর -পূর্ব কোনায় আলহাজ্ব : সামাদ এরবাড়ী (দাগ নং-৪০৮) হতে উত্তরে অন্যান্য দাগসহ পশ্চিম দিকে মরহুম একিন হাজী সাহেবেরবাড়ী হয়ে পূর্ব দক্ষিণ প্রান্তে : সালাম (সিপাই) এর বাড়ী (দাগ নং-১৩৩০) বাদ দিয়েপরের অংশ থেকে পশ্চিম হয়ে দক্ষিণে ত্রিশাল আমরীতলা রাস্তা পর্যন্ত সমগ্র নামত্রিশাল

নং ওয়ার্ড: ত্রিশাল মৌজার ত্রিশাল ধানীখোলার শেষ সীমানায় : সামাদএর বাড়ীর পর থেকে উত্তর পূর্ব সীমান্তে : বারেক : খালেক বাড়ী থেকে সুতিয়া নদীরপশ্চিম পাড় ধরে ত্রিশাল ব্রীজ পর্যন্ত এবং ত্রিশাল পোড়াবাড়ী রাস্তার উত্তর পাশ ধরেদক্ষিণে গো-হাটাকে হাতের বামে রেখে উত্তরে পশ্চিমে ত্রিশাল রাধাকানাই রাস্তারকালভার্ট পর্যন্ত  (আমীর আলীর বাড়ী সংলগ্নকালভার্ট দাগ নং-৬৯৫)

নং ওয়ার্ড: ত্রিশাল মৌজার উত্তর পশ্চিমে প্রান্তে আমীর আলীর বাড়ীহতে (দাগ নং-৬৯৫) পূর্ব দিকে ঈদগাহ মাঠ হয়ে হাজী সামছুদ্দিন নূরুল ইসলাম এর বাড়ীহয়ে গরুহাটাসহ ত্রিশাল পোড়াবাড়ী রাস্তা বরাবর দক্ষিণে দিকে হাতেম আলী মৃধা এর বাড়ীপর্যন্ত (দাগ নং-২৩৯০) দক্ষিণ-পশ্চিম প্রান্তে :সালাম (সিপাই) এর বাড়ী পর্যন্ত(দাগ নং-১৩৩০)

নং ওয়ার্ড: রামপুর মৌজার নজরুল কলেজের সম্মুখস্থল চৌরাস্তা থেকে ত্রিশালপোড়াবাড়ী রাস্তার দক্ষিণ পার্শ্ব ধরে বরাবর ত্রিশাল মৌজার গো-হাটার দক্ষিণ-পূর্বমোড় পর্যন্ত। স্থান থেকে রফাদানী মসজিদকে হাতে ডানে রেখে এবং নুপুর সিনেমা হলকে হাতেরবামে রেখে দরগাহ মসজিদ বরাবর নদী পর্যন্ত। চৌরাস্তা থেকে ঢাকা-ময়মনসিংহ রোডেরপশ্চিম পার্শ্বে ধরে সুতিয়া নদীর ব্রীজ পাড় হয়ে নওধার মৌজার নওধার ত্রিশাল রাস্তারউত্তর পার্শ্বসহ নওধার এর নং দাগ পর্যন্ত (যেখানে হেকিম ডাক্তারের বাড়ী অবস্থিত)

নং ওয়ার্ড: ত্রিশাল মৌজার ত্রিশাল ভাটিপাড়া দক্ষিণ পশ্চিমে কোনেকদম আলীর বাড়ী  থেকে নওধারকে হাতের ডানেরেখে সুতিয়া নদীর পশ্চিম পাড় হয়ে নুপুর সিনেমা হল হাতের ডানে রেখে রাস্তা বরাবর গরুহাটারদক্ষিন পূর্ব মোড় পর্যন্ত।

নং ওয়ার্ড: নওধার মৌজার ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের পশ্চিম দিকে নওধারত্রিশাল রাস্তার উত্তর পার্শ্বসহ বরাবর নং দাগে অবস্থিত নওধার ভাংতি হাকিমডাক্তারের বাড়ী পর্যন্ত এলাকা বাদ দিয়ে সমগ্র নওধার মৌজা।

নং ওয়ার্ড: রামপুর মৌজার বইলর রামপুর সীমান্তে : বারেক এর বাড়ী(দাগ নং-৩৮) থেকে সুতিয়া নদীর পূর্বপাড় ধরে দক্ষিনে ত্রিশাল পোড়াবাড়ী রাস্তারউত্তরপার্শ্ব পর্যন্ত।

নং ওয়ার্ড: রামপুর মৌজার উত্তরে বইলর এর সীমানা ইয়াসিন কবিরাজেরবাড়ী (দাগ নং-৩৯৬) থেকে (খাবলা পাড়ার অংশ মেদার পাড়) ঢাকা-ময়মনসিংহ রোডের পূর্বপার্শ্ব ধরে দক্ষিণে চৌরান্তা থেকে ত্রিশাল বালিপাড়া রাস্তার উত্তর পার্শ্ব ধরেআলীম ব্যাপারীর বাড়ী পর্যন্ত এবং আলীম বেপারীর বাড়ী থেকে উত্তর দিকে পৌরসভারসীমানা পর্যন্ত।

নং ওয়ার্ড: রামপুর মৌজার চৌরাস্তা থেকে ঢাকা-ময়মনসিংহ রোডের পূর্বপার্শ্ব ধরে দক্ষিণে সুতিয়া নদীর উত্তর পাড় পর্যন্ত এবং সুতিয়া নদীর পাড় থেকেপূর্ব দিকে পৌরসভার সীমানা পর্যন্ত। শেষ সীমানা থেকে ত্রিশাল বালিপাড়া রাস্তারদক্ষিণ পার্শ্ব ধরে পূর্ব দিকে পৌরসভার শেষ সীমানা আবুল মনসুর এর বাড়ী (দাগ নং-১২৬২)পর্যন্ত

১৯৯৮ সালে পৌরসভাপ্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর ২৬ জানুয়ারী ২০০৬ সালে ত্রিশাল পৌরসভা ‘‘’’ শ্রেনী থেকে ‘‘’’ শ্রেনীতে উন্নিত হয়। পরবর্তীতে ২৩ নভেম্বর ২০১১ খ্রি:তারিখ প্রজ্ঞাপনেরমাধ্যমে ত্রিশাল পৌরসভা ‘‘’’ শ্রেনী থেকে ‘‘’’ শ্রেনীতে উন্নিত হয়। বর্তমানে ত্রিশাল পৌরসভাতেকর্মকর্তা/কর্মচারীদের সংখ্যা ২৩ জন। ত্রিশাল পৌরসভার নিয়মিত বেতন-ভাতাদি পরিশোধআছে। ত্রিশাল পৌরসভার মোট জনসংখ্যা ২৫,৪২৯ জন (২০০১ সনের আদম শুমারী অনুযায়ী) তন্মধ্যেপুরুষ ১৩৩৭২ জন, মহিলা ১২০৫৭ জন। মোট খানার সংখ্যা ৫০৮৫ টি। মুসলিম ৯৪%, হিন্দু৫.১০%, অন্যান্য .৯০% জনসংখ্যা বৃদ্ধির হার .০১% শিক্ষার হার ৫৭.৫০% ২০১১সালের আদম শুমারী অনুযায়ী মোট জনসংখ্যা ৩৫০৩০ জন। তন্মধ্যে পুরুষ ১৮৯২০ জন, মহিলা১৬১১০ জন, খানার সংখ্যা ৬৬৮০ জন, খানার আকার .০৯, জনসংখ্যা ঘনত্ব ২২৬২ জন ওশিক্ষার হার ৬৩২০% পৌরসভার হোল্ডিং সংখ্যা ৪৭৯৭ টি। সরকারী ৪০টি, ৪৭৫৭ টি(বেসরকারী)

পৌরসভার যানবাহন ও যন্ত্রপাতি বিষয়ক তথ্যঃ

ক্রমিক নং

যানবাহনের বিবরণ

সংখ্যা

অবস্থা

প্রাপ্তির উৎস *

মন্তব্য

পিক আপ

০১ টি

 সচল

নবিদেপ প্রকল্প

 

গারবেজ ট্রাক

০৩টি

 সচল

নবিদেপ প্রকল্প

 

রোড রোলার

০৪ টি

 সচল

নবিদেপ প্রকল্প

 

মটর সাইকেল

  ০৩ টি

 সচল

নবিদেপ প্রকল্প

 

ভীম লিফটার

১টি

 সচল

 

 প্রয়োজন

এসক্যাভেটর

      ১টি

 

 

 প্রয়োজন

ভেকুট্যাক

 

 

 

প্রয়োজন

মিকচার মেশিন

নাই

 

 

 প্রয়োজন

এসক্যাভেটর

নাই

 

 

 প্রয়োজন

১০  বাই সাইকেল  ২টি      

 পরিস্কার পরিচ্ছন্নতা শাখার মালামাল ও জনবলের বিবরনঃ

ক্রমিক নং

জিনিস পত্রের নাম/বিবরণ

সংখ্যা

মন্তব্য

০১

ট্রাক এর সংখা

৩ টি

৩ টি ট্রাক বড় (৫টন)

০২

ভ্যান গাড়ি

১২টি

 সচল

০৩

সাবল

১৪টা

ছোট বড়

০৪

কোদাল

১৪ টি

নতুন

০৫

লোহার কাটা

১২ টি

 নতুন

০৬

কাঁচি

৫ টি

নতুন

০৭

পরিচ্ছন্ন লেবার

১৫ জন

গারর্বেপ ট্রুাক-৪ জন, গারর্বেজ ভ্যান-২ জন, ড্রেন ৯ জন

০৮

রাস্তা ঝাড়ুদার (সুইপার)

১৮ জন

 ঝাড়ুদার

ভৌত অবকাঠামো ও অন্যান্য সেবা সমূহ

রাস্তা বিষয়ক তথ্যঃ

ক্রমিক নং

ধরন

দৈর্ঘ্য (কিঃমিঃ)

রাস্তার অবস্থা (রাস্থার দৈর্ঘ্য)

মন্তব্য

ভাল*

মোটামুটি ভাল*

ভাল নয়*

কার্পেটিং (বিসি)

১২৭.৭৫

৩০.০০

৪০.০

৫৭.৫৭

 

এইচ বি বি

২.১৩

--

২.১৩

--

 

সলিং

২.৬৩

--

২.৬৩

--

 

সিসি/আরসিসি

১৮.৩০

৫.০০

৫.৫০

৮.৩০

 

ডবিস্নউবিএম

--

--

--

--

 

কাঁচা

১০৩.৭২

৪০.০০

২০.০০

৪৩.৭৪

 

অন্যান্য

 

 

 

 

 

      মোট=

২৫৪.৩৫

৭৫.০০

৬৯.৭৬

১০৯.৬১

 

 

*ভাল            - রাস্তাটি চলাচলের উপযোগী এবং নিকট ভবিষ্যতের প্রয়োজন হবেনা

*মোটামুটি ভাল      - রাস্তাটি অল্প কিছু সংস্কার করলে চলাচলের উপযোগী হবে

*ভাল নয়         - রাস্তাটি পূনঃনির্মান করা ছাড়া চালাচলের উপযেগী হবে না

ড্রেন বিষয়ক তথ্যঃ

ক্রমিক নং

ধরন

দৈর্ঘ্য (কিঃমিঃ)

ড্রেনের অবস্থা

মন্তব্য

সংস্কারের প্রয়োজন

সংস্কারের প্রয়োজন নই

ব্রিক ড্রেন

২৫.০০

১৫.০০

১০.০০

 

আরসিস ড্রেন

৯.১৮

৫.০০

৪.১৮

 

প্রাইমারী খাল/ড্রেন

২২.২৩

২২.২৩

--

 

কাঁচা ড্রেন

২৩.৬৮

২৩.৬৮

১৪.১৮

 

 

ব্রিজ ও কালভার্ট বিষয়ক তথ্যঃ

ক্রমিক নং

বিবরণ

সংখ্যা

দৈর্ঘ্য (মিঃ)

সংস্কারের প্রয়োজন নাই

ব্রিজের সংখ্যা

১০

১৩০

 

কালভার্টের সংখ্যা

৬১

৫২০

 

মোট

৭১

৬৫০

 

 

সড়ক বাতি সংক্রান্ত তথ্যঃ

ক্রমিক নং

বিবরণ

(কিঃমিঃ)

সংখ্যা

সড়ক বাতির সংখ্যা ও সড়কের দৈর্ঘ্য (কিঃমিঃ)

২১৫.০০

৪৮.০০

 

শতকারা (%)

সড়ক বাতির কভারেজ (%)

৭০

 

টাকা

মাসিক সড়ক বাতির বিল (টাকা)

১,৭৫,০০০.০০

সগক বাতির বিলের বকেয়ার পরিমাণ

১,০০,০০,০০০.০০

 

পানি সরবরাহ বিষয়ক তথ্য (পাইপ লাইন ১০০.১২১ কিঃমিঃ)

উৎপাদক নলকুপ এবং হস্ত চালিত নলকূপঃ

পাম্ব নম্বর/ অবস্থান

উৎপাদক নলকূপ

হস্তচালিত নলকূপ (সংখ্যা)

মন্তব্য

ধরণ

সাইজ

স্থাপনের বৎসর

গভীরতা (মিঃ)

উৎপাদন ক্ষমতা ঘন মি/ঘন্টা

PTW- 10

গভীর

১৪’’

১৯৯৭

১১২

৭৫

প্রযোজ্য নয়

 

PTW- 11

গভীর

১৪’’

২০০১

১১০

৮৫

প্রযোজ্য নয়

 

PTW- 12

গভীর

১৪’’

২০০১

১০৮

৮২

প্রযোজ্য নয়

 

PTW- 13

গভীর

১৪’’

২০০১

১১০

৯০

প্রযোজ্য নয়

 

PTW- 14

গভীর

১৪’’

২০০১

১১২

৮৮

প্রযোজ্য নয়

 

PTW- 15

গভীর

১৪’’

২০০১

১০৭

৮৫

প্রযোজ্য নয়

 

PTW- 16

গভীর

১৪’’

২০০১

১১০

৮৫

প্রযোজ্য নয়

 

PTW- 17

গভীর

১৪’’

২০১০

১১২

১০০

প্রযোজ্য নয়

 

PTW- 18

গভীর

১৪’’

২০১০

১১০

১০০

প্রযোজ্য নয়

 

PTW- 19

গভীর

১৪’’

২০১০

১০৮

১০০

প্রযোজ্য নয়

 

 

আবাসিক গৃহ সংযোগ (নল বাহিত পানি)ঃ

ক্রমিক নং

সংযেগ ব্যাস (মিমি)

সংযেগ সংখ্যা

মাসিক বিল (টাকা)/প্রতি সংযোগ

মন্তব্য

১৩ মিমি (০.৫ ইঞ্চি)

৫৪১৭

১০০

৮’’ একটি সংযেগ মাসিক বিল ৬৪,২৪৮ টাকা। মিটারে বিল করা হয়। প্রতি হাজার ‍লিটার ৬ টাকা।

১৯ মিমি (০.৭৫ ইঞ্চি)

৫১৫

৩০০

২৫ মিমি (১ ইঞ্চি)

---

---

৩৮ মিমি (১.৫ ইঞ্চি)

---

---

৫০ মিমি (২ ইঞ্চি)

---

---

৭৫ মিমি (৩ ইঞ্চি(

প্রযোজ্য নয়

প্রযোজ্য নয়

মোটঃ

বাণিজ্যিক গৃহ সংযোগ (নল বাহিত পানি)ঃ

ক্রমিক নং

সংযেগ ব্যাস (মিমি)

সংযেগ সংখ্যা

মাসিক বিল (টাকা)/প্রতি সংযোগ

মন্তব্য

১৩ মিমি (০.৫ ইঞ্চি)

২৭

২০০

৪’’ একটি সংযোগ মাসিক বিল ১৯৫৬০ টাকা ও ৮’’ একটি সংযোগ মাসিক বিল ৬৮,২৫০ টাকা। মিটারে বিল করা হয়। বানিজ্যিক প্রতি হাজার লিটার ১৫ একা।

১৯ মিমি (০.৭৫ ইঞ্চি)

২৬

৫০০

২৫ মিমি (১ ইঞ্চি)

৩৫

৮০০

৩৮ মিমি (১.৫ ইঞ্চি)

১৮০০

৫৯ মিমি (২ ইঞ্চি)

৩৫০০

৭৫ মিমি (৩ ইঞ্চি)

প্রযোজ্য নয়

প্রযোজ্য নয়

মোটঃ                          ১০০ টি

মাসিক পানির ট্যারিফ/বিল বাবদ দাবীঃ

ক্রমি কনং

সংযোগ ব্যস (মিমি)

সংযোগ সংখ্যা

মোট মাসিক বিল

টাকা হাজারে

মন্তব্য

আবাসিক (১৩ মিমি)

৫৪১৫

১০০

৫১৪

 

 

 

মার্চ ২০১২ পর্যন্ত ট্যারিফ বকেয়া বকেয়া ১৪৬৮৬ হাজার।

বাণিজ্যিক (১৩ মিমি)

২৭

২০০

৫.৪

আবাসিক (১৯ মিমি)

৫১৫

৩০০

১৫৪.৫

বাণিজ্যিক (১৩ মিমি)

২৬

৫০০

১৩

বাণিজ্যিক (১৩ মিমি)

৩৫

৮০০

২৮

বাণিজ্যিক (১৩ মিমি)

১৮০০

১৬

বাণিজ্যিক (১৩ মিমি)

৩৫০০

১০.৫

অন্যান্য (১০০ মিমি)

 

১৯.৫৬

অন্যান্য (২০০ মিমি)

 

১৩২.৪৫

১০

মোট

৬০৩৪

 

 

*পানির ট্যারিফ/বিলের বকেয়া দাবীর পরিমাণ মন্তব্য কলামে লিখা যাইতে পারে।

পানি সরবরাহ সংক্রান্ত বিবিধ তথ্যঃ

ক্রমিক নং

বিবরণ

একক

সংখ্যা/পরিমান/ অবস্থা

উচ্চ জলাধারের সংখ্যা

সংখ্যা

উচ্চ জলাধারের ড়্গমতা

ঘনমিটার

৬৮০

আয়তন/আরসেনিকমুক্তকরণ পস্নান্টের সংখ্যা

সংখ্যা

সারফেস ওয়াটার ট্রিটমেন্ট পস্নান্ট

সংখ্যা

---

প্রতিদিন গড়ে পানি বিশুদ্ধকরণ

ঘনমিটার

৫৯৪০

পানি সরবরাহ ঘন্টা

ঘন্টা

৬.৫

পানি সরবরাহ শাখার কর্মকর্তা/কর্মচারীর সংখ্যা

সংখ্যা

৪২ (২২ জন লবার)

প্রতি হাজার সংযোগ সংখ্যার জন্য কর্মচারীর সংখ্যা

সংখ্যা

মোট পানির চাহিদা (প্রতিদিন)

ঘনমিটার

৮১৯২ ঘঃ মিঃ

১০

প্রতিদিন সরবরাহকৃত পানির পরিমাণ

ঘনমিটার

৫২২৫ ঘঃ মিঃ

১১

নন- রেভিনউ ওয়াটার (NRW)

%

১২%

১২

৩ বছরের লীক মেরামতের বিবরণ

২০০৯

সংখ্যা

১১০

২০১০

সংখ্যা

১৩০

২০১১

সংখ্যা

১৫০

২০১২

সংখ্যা

৪৫ মার্চ

১৩

পৌর এলাকায় মোট স্ট্রিট হাইড্রেনের সংখ্যা

সংখ্যা

৩৮

১৪

পানি সরবরাহের আওতায় মোট জনসংখ্যা

সংখ্যা

৬৮২৬৪

১৫

ওয়াটা কভারেজ (%)

%

২০%

১৬

পানিতে আর্সেনিক আছে কীনা (থাকলে মাত্রা লিখতে হবে)

হ্যা/না

০.০৪-০.০৫ পিপিএম

১৭

পানিতে আয়রন আছে কীনা (থাকলে মাত্রা লিখতে হবে)

হ্যা/না

১০-১৪ পিপিএম

১৮

পানির মিটারিং ব্যবস্থা আছে কীনা

হ্যা/না

৪’’ ও ৮’’ ২টি সংযোগে মিটার আছে।

১৯

নিয়মিত পানি পরীক্ষা করাহয় কীনা

 

হয়।

 

বর্তমানে পানি সরবরাহ ব্যবস্থার সমস্যা ও হুমকি গুলি কী কী?

     বর্তমানে পৌর এলাকায় মাত্র ২০% লোকের পাইপ লাইনের মাধ্যমে পানিসরবরাহ করা সম্বব হচ্ছে। পর্যাপ্ত পানিশেধনাগর, উৎপাদক নলকূপ ও উচ্চ জলাধার না থাকায় পৌরবারীদের চাহিদা মোতবেক পাইপ লাইনের মাধ্যমে পানি সরবরাহ করা সম্বব হচ্ছে না । পৌরবাসী নিজস্ব উদ্যোগে হস্ত চালিত নলকুক স্থাপন করে পানির ব্যবস্থা করলেও পানিতে মাত্রাতিরিক্ত আরসেনিক থাকায় বিভিন্ন ধরনের পানি বাহিত রোগের প্রাদুর্ভাব দেখা দেয়।

১০.৫.৭ পানি সরবরাহ ব্যবস্থার উন্নয়নে করণীয় কি হতে পারে?

ক) কলেজ পাড়া ও সাবালিয়া এলাকায় নির্মিত ৩ টি পানিশোধনাগারের সাথে সেডিমেন্টেশন ট্যাংক নির্মাণ করা প্রয়োজনীয়।

খ) বেড়াবোচনা এলাকায় নির্মিত উচ্চ কলধারা এলাকায় পানিশেধনাগার, সেডিমেন্টেশন ট্যাংক নির্মণ সহ প্রয়োজনীয় ইলেক্ট্রোমেকানিক্যাল কাজ করা প্রয়োজন।

গ) পৌরবাসীদের চাহিদা মোতাবেক বিশুদ্ধ পানি সরবরাহ করতে হলে সন্তোষ, আশেকপুর, বাজিতপুর, দেওলা, এনায়েতপুর, কাগমারা ও অলোয়া আরো ৭টি উচ্চ পলাধার, পানিমেধনাগার, সেডিমেন্টশন ট্যাংক নির্মাণ সহ প্রয়োজনীয় ইলেক্ট্রোমেকানিক্যাল কাজ করা প্রয়োজন।

 

বর্জ্য ব্যবস্থাপনা বিষয়ক তথ্যঃ

ক্রমিক নং

বিবরণ

সংখ্যা, আয়তন, পরিমাণ ইত্যাদি

মন্তব্য

গার্বেজ ট্রাকের সংখ্যা

১.৫ টন

১ টি

 

৩.০ টন

৩ টি

 

৫.০ টন

১ টি

 

ডাস্টবিন সংখ্যা

১২০ টি

 

3

ট্রান্সফ ষ্টেশন সংখ্যা

নাই

 

ঠেলাগাড়ীর সংখ্যা

নাই

 

সলিহওয়েস্ট ডিসপোজাল গ্রাউন্ডের পরিমান

নাই

 

মোট উৎপাদিত বর্জ্য (টন)

প্রতিদিন ৮০ টন

 

মোট সংগৃহীত বর্জ্য (টন)

প্রতিদিন ৩০ টন

 

বাড়ী বাড়ী থেকে ভ্যানের মাধ্যমে বর্জ্য সংগ্রহ করা হয় কিনা (হ্যা/না)

হ্যা

 

কতটি ভ্যান কাজ করছে এবং প্রতিদিন কত টন বর্জ্য সংগ্রহ করে?

১৪টি, প্রতিদিন ২টন

 

১০

পরিচ্ছন্নতা কর্মী সংখ্যা কত?

লেবার ১৯০ জন

 

১১

এখাতি ২০১০-১১ অর্থ বছরে মোট ব্যয়

৫০,০০,০০০/-

 

১২

বর্জ্য থেকে কম্পোজট সার উৎপাদন হয় কিনা হলে প্রতিমাসে কতটন হয়?

উৎপাদন হয় না।

 

১৩

বর্জ্য থেকে বায়োগ্যাস উৎপন্ন হলে কতটি বাড়িতে গ্যাসের সংযোগ দেওয়া হয়েছে?

১। পরিকল্পিত নগরী গড়ে তোলার লক্ষে মহা-পরিকল্পনার আওতায় ভূমি ব্যবহার পরিকল্পনা, রোড নেটওর্য়াক পরিকল্পনাসহ পরিবহন ও যানবহন ব্যবস্থাপনা পরিকল্পনা ,পানি নিষ্কাশন (ড্রেনেজ) ও পরিবেশ ব্যবস্থাপনা পরিকল্পনা প্রনয়ন এবং তদানুযায়ী শিল্প প্রতিষ্ঠানসহ সকল প্রকার স্থাপনা নির্মান ও পরিচালন নিয়ন্ত্রণ করা।

২। নাগরিক সেবা সুবিধা নিশ্চিত করার লক্ষ্যে মান সম্পন্ন সকল প্রকার ভৌত অবকাঠামো ও নাগরিক সেবা প্রদান করা।

৩। নিরাপদ শহর গড়ার লক্ষে আর্থ সামাজিক অবস্থার উন্নয়ন ও দারিদ্র হ্রাস করন কর্মসূচী গ্রহন করা।

৪। আর্থিক ও প্রতিষ্ঠানিক ভাবে দক্ষ ও সয়ং সম্পূর্ণ পৌরসভা হিসাবে গড়ে তোলার লক্ষে প্রয়োজনীয় জনবল নিয়োগ এবং প্রশাসনিক ও আর্থিক ব্যাবস্থাসহ পৌরসভার সকল পরিচালন ব্যবস্থার উন্নয়ন ও সংস্কার করা।

Contact Us

  • ত্রিশাল পৌরসভা
  • +৮৮০ ১৭১১ ৬৮৭১৮৭
  • mayor@trishalpourashava.org